1. admin@theinventbd.com : admin :
  2. worksofine@rambler.ru : JefferyDof :
  3. kevin-caraballo@mainello5.tastyarabicacoffee.com : kevincaraballo :
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৬ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
জলঢাকায় ইএসডিও- ডাভ সেলফ এস্টিম প্রকল্পের অবহিতকরন সভা অনুষ্ঠিত তিস্তায় পানি বৃদ্ধি ২২ গ্রাম প্লাবিত হুমকির মুখে তিস্তার তীরবর্তী মানুষ জলঢাকায় ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন পালন জলঢাকায় শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন পালন করেছে যুবলীগ জলঢাকায় ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে নারী উদ্দোক্তা প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত আনন্দের ভাগিদার হতে ছুটে এসেছি জলঢাকায় পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে ড. তুরিন আফরোজ জলঢাকায় মঙ্গলদ্বীপের উদ্যোগে দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জলঢাকায় প্রতিমাকে দৃষ্টিনন্দন করতে রং তুলির কাজে ব্যস্ত এখন কারিগররা জলঢাকায় অনির্বাণ স্কুলে একাডেমিক ভুবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন জলঢাকায় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু পরিষদের আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত

ক্যাম্পাসের গাছ থেকে আম পাড়ায় ছাত্রকে থাপ্পড় দিলেন সহকারী প্রক্টর!

অনলাইন ডেস্ক |
  • প্রকাশকাল | শনিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২১
  • ১০৬ বার পঠিত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর আরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে এক শিক্ষার্থীকে থাপ্পড় মারার অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী হাসান আলী বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগের মার্স্টার্স ২০১৯-২০ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেচ্ছা মুজিব হল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবর পাঠানো ভুক্তভোগীর এক লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে এ তথ্য জানা গেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে হাসান, একই বিভাগের ছাত্রী ও তার স্ত্রী এবং বাসা মালিকের ছােট্ট মেয়েকে নিয়ে ক্যাম্পাসের ভেতরে যান। পরে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেচ্ছা মুজিব হলের সামনে আম পাড়তে গাছে উঠেন এবং ৮/১০টি আম সংগ্রহ করে।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর সেখানে উপস্থিত হয়ে হাসানকে গাছ থেকে নেমে আসতে বলেন। গাছ থেকে নেমে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ওই শিক্ষককে না চিনতে পেরে ‘ভাই’ বলে সম্বোধন করেন এবং শিক্ষার্থী হিসেবে নিজের পরিচয় দেন।

এসময় ওই সহকারী প্রক্টর ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে ‘ছাত্র হইছিস তাে কি হয়েছে! আমসহ সামনে দাড়া! তাের ছবি উঠাব’ বলে ধমক দেন। পরে ভুক্তভোগী ভুল স্বীকার করলেও সহকারী প্রক্টর বলেন ‘ক্যাম্পাস কি অরাজকতা পাইছিস! এভাবে ক্যাম্পাসের ফল-ফলাদি নিয়ে যাস! তােদের কারণে ক্যাম্পাসে কিছু থাকে না।’

একপর্যায়ে সহকারী প্রক্টর আরিফ ভুক্তভোগীকে থাপ্পড় দেন এবং বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে তাদের আটকে রাখেন। পরে পক্টরিয়াল বডি ভুক্তভোগীসহ অন্য দুজনকে ছেড়ে দেয়।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী হাসান আলী বলেন, ‘নিজের ক্যাম্পাসের গাছ থেকে আম পাড়ায় থাপ্পড় খেতে হলো। আমাকে থাপ্পড় মারার কারণে আমি শারীরিক ও মানসিকভাবে লাঞ্ছনার স্বীকার হয়েছি। সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে আমি আমার শারীরিক ও মানসিকভাবে লাঞ্চনার বিচার চাই।’

অভিযুক্ত সহকারী প্রক্টর আরিফুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে কথা বলতে চাচ্ছি না। তার উদ্ভট আচরণে আমি খুবই ক্ষুব্ধ। আমি আমার দায়িত্ব পালন করেছি।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. জাহাঙ্গীর হোসেন সাংবাদিকের বলেন, ‘লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। শনিবার সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করব।’

সংবাদটি শেয়ার করুন :

এই বিভাগের আরও খবর
Copyright © The Invent
error: Content is protected !!