1. admin@theinventbd.com : admin :
  2. worksofine@rambler.ru : JefferyDof :
  3. kevin-caraballo@mainello5.tastyarabicacoffee.com : kevincaraballo :
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:২৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
জলঢাকায় ফেন্সিডিল সহ গ্রেফতার- ২ পলাতক-১’জন মোটরসাইকেল জব্দ সৈয়দপুরে জীবিত স্বামীকে মৃত দেখিয়ে ১৭ বছর থেকে বিধবা ভাতা উত্তোলন, সমাজসেবা কর্তৃপক্ষ নির্বিকার ঝিকরগাছায় আর্সেনিক ঝুঁকি নিরসন প্রকল্পের অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত জলঢাকায় ১১ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশের মাঝে ১০৯টি বাইসাইকেল বিতরণ জলঢাকায় যানজটে জনদুর্ভোগ বেড়েই চলছে : নিরসনের দাবি পৌরবাসির বেনাপোলে গৃহহীনদের ঘর নিয়ে ভুমি অফিসের সহকারীর বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ। ঝিকরগাছায় সাপের কামড়ে ১ গৃহবধূর মৃত্যু বেনাপোলে র‍্যাবের অভিযানে গাজাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক সৈয়দপুরে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বাইসাইকেল বিতরণ সৈয়দপুরে সাহিত্য আসরের ৪থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

হেরোইন খেতে না দেয়ায় মাদক সম্রাট মিজানকে হত্যা করে মাদকসেবীরা

অনলাইন ডেস্ক |
  • প্রকাশকাল | মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২১
  • ৮২ বার পঠিত

হেরোইন খেতে না দেয়ায় মাদক সম্রাট মিজানুর রহমানকে(৪৮) শ্বাসরোধ করে হত্যা করে দুই মাদক সেবী।

মঙ্গলবার ২৭এপ্রিল ডোমার থানা পুলিশ প্রেস কনফারেন্সের মাধ্যমে জানান,২১এপ্রিল বিকেলের দিকে ডোমার শহরের কাজীপাড়াস্থ নিজ বাড়িতে কেউ না থাকার সুবাদে মিজানুরকে হত্যা করে একই এলাকার গোডাউন পাড়ার মৃত. হাকিম উদ্দিনের ছেলে আবু তালেব(৫৫) ও কাজীপাড়ার রশিদুল ইসলামের ছেলে আব্দুস সালাম(৪০)।
এদিন রাত আটটার দিকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। পরদিন ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।
পুলিশ জানায়, মিজানুরের স্ত্রী সাহিদা বেগম রুপা সন্তান মেঘলা মনিকে নিয়ে ঘটনার দিন রংপুরে যান চিকিৎসকের কাছে।
এরই মধ্যে দুপুরে মিজানুর ফোনে ছালামকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে ছালামকে জনৈক ব্যক্তির কাছে দশ পিচ ইয়াবা দিয়ে আসতে বলেন। সরবরাহকারী স্থানে আগে থেকেই ছিলো অপর মাদক সেবী আবু তালেব। পরে তারা দু’জনের মিজানুরের বাড়িতে ফিরে তার কাছে হেরোইন খেতে চাইলে দিতে অস্বীকার করে মিজানুর। কথা কাটাকাটি ও ধস্তধস্তির এক পর্যায়ে স্ট্যান্ড ফ্যানের তার দিয়ে পেঁচিয়ে হত্যা করে মিজানুরকে চেয়ারে রেখে পালিয়ে যান তালেব ও ছালাম।
পালিয়ে যাওয়ার সময় তালেবের চশমা সেখানে পড়ে থাকে। এটিই জব্দ করে ঘটনার রাতেই পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।
ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মোস্তাফিজার রহমান জানান, চশমা সুত্রে প্রথমে গ্রেফতার হন আবু তালেব। পরে তার তথ্য মোতাবেক এবং মিজানুরের মোবাইলের কললিস্ট চেক করে পরবর্তিতে ২৫এপ্রিল গ্রেফতার করা হয় অপর মাদক সেবী আব্দুস সালামকে। ছালাম পুলিশের কাছে ঘটনার বর্ণনা এবং হত্যায় নিজের সম্পৃক্তা উল্লেখ করে আদালতে স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
ডোমার সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জয়ব্রত পাল জানান, ঘটনার পরই পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান বিপিএম, পিপিএম স্যারে প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় কাজ শুরু করে পুলিশ। বিভিন্ন বিষয়ের উপর শুরু হয় তদন্ত। এক পর্যায়ে চশমার মালিক গ্রেফতার হওয়ায় তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে গ্রেফতার হয় আব্দুস সালাম। এরই মধ্যে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে বের হয় বাড়িতে কেউ থাকা অবস্থায় সালাম ও তালেবের উপস্থিতি এবং হত্যার বর্বরতা।
জেলা পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল বাশার মোহাম্মদ আতিকুর রহমান জানান, গ্রেফতার ব্যক্তিরা দু’জনই জেলা কারাগারে রয়েছেন। তারা আদালতে স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি দিয়েছেন। সবোর্চ্চ সাজা হবে আদালত থেকে আমরা এটি মনে করি।
পুলিশ জানায় চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ী মিজানুর রহমানের নামে ১৬টি এবং তার স্ত্রী সাহিদা বেগম রুপার নামে ২০টি মাদক মামলা রয়েছে। এসব মামলায় জামিনে রয়েছেন তারা। এদিকে
মাত্র কয়েক দিনের মধ্যেই ডোমার থানা পুলিশ মিজান হত্যার রহস্য উদঘাটন করায় ডোমারবাসী পুলিশকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

এই বিভাগের আরও খবর
Copyright © The Invent
error: Content is protected !!