1. admin@theinventbd.com : admin :
  2. worksofine@rambler.ru : JefferyDof :
  3. kevin-caraballo@mainello5.tastyarabicacoffee.com : kevincaraballo :
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৪:২৭ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
জলঢাকায় ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশনের কর্মীসভা অনুষ্ঠিত জলঢাকায় ইএসডিও- ডাভ সেলফ এস্টিম প্রকল্পের অবহিতকরন সভা অনুষ্ঠিত তিস্তায় পানি বৃদ্ধি ২২ গ্রাম প্লাবিত হুমকির মুখে তিস্তার তীরবর্তী মানুষ জলঢাকায় ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন পালন জলঢাকায় শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন পালন করেছে যুবলীগ জলঢাকায় ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে নারী উদ্দোক্তা প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত আনন্দের ভাগিদার হতে ছুটে এসেছি জলঢাকায় পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে ড. তুরিন আফরোজ জলঢাকায় মঙ্গলদ্বীপের উদ্যোগে দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জলঢাকায় প্রতিমাকে দৃষ্টিনন্দন করতে রং তুলির কাজে ব্যস্ত এখন কারিগররা জলঢাকায় অনির্বাণ স্কুলে একাডেমিক ভুবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

অক্সিজেনের সমস্যা মিটলে ডাক্তারের অভাব পড়বে: দেবি শেঠি

অনলাইন ডেস্ক |
  • প্রকাশকাল | বুধবার, ৫ মে, ২০২১
  • ৭১ বার পঠিত

বিখ্যাত সার্জন দেবি শেঠি বলেছেন, ভারতে অক্সিজেনের সমস্যা কিছুটা কেটে গেলে নতুন চিন্তা শুরু হবে চিকিৎসক এবং নার্সদের নিয়ে। তার শঙ্কা, আইসিইউতে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেয়ার মতো ডাক্তার-নার্স পাওয়া যাবে না!

সিম্বোসিস ইন্টারন্যাশনাল আয়োজিত একটি ভার্চুয়াল কনফারেন্সে এপ্রিলের শেষ দিকে দেবি শেঠি বলেন, ‘অক্সিজেনের সমস্যা একবার সমাধান হলে, সামনের কয়েক সপ্তায় পরবর্তী সমস্যা হবে আইসিইউতে রোগীদের মৃত্যু। কারণ চিকিৎসার জন্য সেখানে কোনো ডাক্তার থাকবে না। এটা যে ঘটতে চাচ্ছে, সে বিষয়ে আমার কোনো সন্দেহ নেই।’

এমন শঙ্কার পেছনে যুক্তি দিতে গিয়ে দেবি শেঠি বলেন, ‘মে মাসে প্রচুর গরম পড়তে পারে। সবচেয়ে ফিট মানুষটিও চার-পাঁচ ঘণ্টা কভিড আইসিইউতে কাজ করতে সমস্যায় পড়বেন। প্রথম ঢেউ থেকে যারা কাজ করছেন, তারা মানসিকভাবে বিধ্বস্ত। আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কায়।’

বিভিন্ন গবেষকেরা বলছেন, ভারতে সরকারি হিসাবের চেয়ে অনেক বেশি মানুষ প্রতিদিন আক্রান্ত হচ্ছেন। দেবি শেঠিও তেমনটি বললেন, ‘দেশে যিনি আক্রান্ত হচ্ছেন, সঙ্গে পাঁচ-দশজনকেও আক্রান্ত করছেন। কিন্তু তাদের পরীক্ষা হচ্ছে না। এর মানে প্রতিদিন সত্যিকার অর্থে ৫-১০ লাখ মানুষ সংক্রমিত হয়ে থাকতে পারেন।’

পরিস্থিতি সামাল দিতে হলে ভারতে কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ৫ লাখ আইসিইউ বেড লাগবে বলে মনে করেন বিখ্যাত এই সার্জন। ভারতে বর্তমানে ৭০ থেকে ৯০ হাজার আইসিইউ আছে, যেগুলো ইতিমধ্যে করোনা রোগীতে পূর্ণ।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

এই বিভাগের আরও খবর
Copyright © The Invent
error: Content is protected !!