1. admin@theinventbd.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
সৈয়দপুরে ৮ বছরের শিশুকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে একমাস ধরে ধর্ষণের অভিযোগ।। হাতেনাতে সৎ নানা আটক কিশোরগঞ্জে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির ভাতাভোগীদের ৯ মাসের টাকা বেহাত কিশোরগঞ্জে ১টি পরিবারকে ৫ দিন ধরে অবরুদ্ধ রাখার অভিযোগ সৈয়দপুরে চালককে ছুরিকাঘাত করে ভ্যান ছিনতাই নীলফামারীতে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী দুই শিক্ষার্থী পেল পোর্টেবল ভিডিও ম্যাগনিফায়ার জলঢাকায় ববিতা রানী সরকারের প্রতিবন্ধীর মাঝে হুইল চেয়ার বিতরন আমজাদ সরকার সভাপতি ও খায়রুল সম্পাদক জলঢাকায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর কমিটি গঠন জলঢাকায় হরিজন সম্প্রদায়ের অধিকার প্রতিষ্ঠার লড়াই করবেন ব্যারিস্টার তুরিন মিথ্যা প্রতিবেদন প্রকাশের প্রতিবাদে সৈয়দপুর উপজেলা চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন সৈয়দপুরে গোয়াল ঘরের তালা কেটে গাভী চুরি

মোবাইল অ্যাপ হ্যাক করে ১৮ দেশে সক্রিয় ৮০০ সংঘবদ্ধ অপরাধী গ্রেপ্তার

অনলাইন ডেস্ক |
  • প্রকাশকাল | মঙ্গলবার, ৮ জুন, ২০২১
  • ৩২ বার পঠিত

একটি মোবাইল অ্যাপ হ্যাক করে কয়েক মিলিয়ন এনক্রিপ্টেড মেসেজের সূত্র ধরে ১৮টি দেশে সক্রিয় সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রের কয়েকশ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, অস্ট্রেলিয়া ও ইউরোপীয় পুলিশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের এফবিআই এ অভিযান চালিয়ে অস্ট্রেলিয়া, এশিয়া, ইউরোপ, দক্ষিণ আমেরিকা ও মধ্য প্রাচ্যে বিশ্বব্যাপী মাদক ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িত সন্দেহভাজনদেরকে চিহ্নিত করেছেন।

বিশ্বজুড়ে অভিযান চালিয়ে সংঘবদ্ধ অপরাধীদের প্রায় ৮০০ জনেরও বেশি সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং ১৪৮ মিলিয়ন ডলার নগদ ও প্রচুর পরিমাণে মাদক জব্দ করা হয়েছে বলে কর্মকর্তারা জানান।

‘অপারেশন ট্রোজান শিল্ড’ নামে এফবিআই পরিচালিত এই অভিযানের মাধ্যমে বিশেষ এনক্রিপ্টেড নেটওয়ার্কের মধ্যে অনুপ্রবেশ করে কর্মকর্তারা সেটির নিয়ন্ত্রণ নেন।

অস্ট্রেলিয়ান ফেডারেল পুলিশ কমিশনার রিস কার্শা জানান, পুলিশ ওই অ্যাপের তথ্যের মাধ্যমে অবৈধ মোটরসাইকেল গ্যাংয়ের সদস্যসহ ২২৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। নিউজিল্যান্ডে গ্রেপ্তার হয়েছেন আরও ৩৫ জন।

এছাড়াও জার্মানিতে ৭৫ জন সুইডিশ নাগরিকের সঙ্গে আরও ৬০ জনকে গ্রেপ্তার এবং হল্যান্ডেও ৪৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে হয়েছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

খবরে বলা হয়, অস্ট্রেলিয়ান পুলিশ ও এফবিআই ২০১৮ সালে এই অভিযানটির পরিকল্পনা করে। মার্কিন কর্মকর্তাদের নিয়ন্ত্রণে আসার পর মোবাইল অ্যাপ অ্যানোমের মাধ্যমে তদন্তকারীরা সংঘবদ্ধ অপরাধীদের খুঁজতে শুরু করেন।

অস্ট্রেলিয়ার অপরাধীদের একটি চক্র নিরাপদ যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে এই অ্যাপসহ কাস্টমাইজড ফোনগুলো বিতরণ করা হয়েছিল। এই গ্যাংটির বিশ্বাস ছিল, তাদের যোগাযোগের মাধ্যমটি সুরক্ষিত। কারণ ওই ফোনগুলোতে ভয়েস রেকর্ডার বা ক্যামেরা ছিল না এবং যোগাযোগের একমাত্র অ্যাপটি এনক্রিপ্টেড ছিল।

তবে তাদের কর্মকাণ্ড সবসময়ই পুলিশের নজরদারিতে ছিল। এফবিআইয়ের এক কর্মকর্তা জানান, একশটিরও বেশি দেশের অপরাধী চক্র এই ধরনের ফোন ব্যবহার করছিল।

প্রেস ব্রিফিংয়ে কেরশা বলেন, আমরা সংঘবদ্ধ অপরাধীদের পকেটেই ছিলাম। মাদক, সহিংসতা, কারও ওপর হামলা কিংবা নিরীহ মানুষ হত্যা করার মতো তথ্য পাচ্ছিলাম।

কার্শা আরও জানান, এক পলাতক অস্ট্রেলিয়ান আন্ডারওয়ার্ল্ড ব্যক্তি এই ফোন বিতরণ করে মূলত তার নিজের দল ভারি করেছেন, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছন। তিনি এক জন চিহ্নিত অপরাধী।

কার্শা বলেন, যত তাড়াতাড়ি তিনি আত্মসমর্পন করবেন, তার নিজের ও পরিবারের পক্ষে তত ভালো হবে।

কর্মকর্তা জানান, অ্যাপটির মাধ্যমে তারা একটি হত্যাকাণ্ডের পটভূমির কথা জানতে পেরেছিল। অপরাধীরা মেশিনগান দিয়ে একটি ক্যাফে আক্রমণের পরিকল্পনা করেছিল। সেখানে পাঁচজনের একটি পরিবারকে টার্গেট করা হয়েছিল। তারা এই হামলা আটকাতে সক্ষম হন।

সোমবার অস্ট্রেলিয়ায় এক দিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক সার্চ ওয়ারেন্ট দিয়ে পুলিশ সামরিক মানের স্নাইপার রাইফেলসহ ১০৪টি আগ্নেয়াস্ত্র এবং প্রায় ৪৫ মিলিয়ন অস্ট্রেলিয়ান ডলার নগদ জব্দ করেছে। সিডনির শহরতলিতে একটি বাগানের শেডের নিচে মাটি খুঁড়ে প্রায় সাত মিলিয়ন ডলার পাওয়া গেছে।

এ চক্রটির বিরুদ্ধে মোট ৫২৫টি অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে তবে আগামী সপ্তাহগুলোতে আরও বেশি অপরাধের ঘটনা উঠে আসতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন জানান, এই অভিযান সংগঠিত অপরাধের বিরুদ্ধে প্রচণ্ড আঘাত করেছে— কেবল এদেশেই (অস্ট্রেলিয়া) নয়, এটি বিশ্বজুড়ে প্রতিধ্বনিত হবে।

সিডনিতে মরিসন সাংবাদিকদের বলেন, অস্ট্রেলিয়ান আইন প্রয়োগের ইতিহাসে এটি একটি টার্নিং পয়েন্ট।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

এই বিভাগের আরও খবর
Copyright © The Invent
error: Content is protected !!