1. admin@theinventbd.com : admin :
  2. worksofine@rambler.ru : JefferyDof :
  3. kevin-caraballo@mainello5.tastyarabicacoffee.com : kevincaraballo :
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:১৮ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
জলঢাকায় ফেন্সিডিল সহ গ্রেফতার- ২ পলাতক-১’জন মোটরসাইকেল জব্দ সৈয়দপুরে জীবিত স্বামীকে মৃত দেখিয়ে ১৭ বছর থেকে বিধবা ভাতা উত্তোলন, সমাজসেবা কর্তৃপক্ষ নির্বিকার ঝিকরগাছায় আর্সেনিক ঝুঁকি নিরসন প্রকল্পের অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত জলঢাকায় ১১ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশের মাঝে ১০৯টি বাইসাইকেল বিতরণ জলঢাকায় যানজটে জনদুর্ভোগ বেড়েই চলছে : নিরসনের দাবি পৌরবাসির বেনাপোলে গৃহহীনদের ঘর নিয়ে ভুমি অফিসের সহকারীর বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ। ঝিকরগাছায় সাপের কামড়ে ১ গৃহবধূর মৃত্যু বেনাপোলে র‍্যাবের অভিযানে গাজাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক সৈয়দপুরে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বাইসাইকেল বিতরণ সৈয়দপুরে সাহিত্য আসরের ৪থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

মৃত্যু এবার ২৫৮

অনলাইন ডেস্ক |
  • প্রকাশকাল | বুধবার, ২৮ জুলাই, ২০২১
  • ৮৩ বার পঠিত

দেশে করোনায় মৃত্যু উদ্বেগজনক হারে বেড়েই চলছে। গত তিন দিন ধরে দুইশ’র উপরে মৃত্যু হচ্ছে। গত দুদিন ধরে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড হচ্ছে। সর্বশেষ গত ২৪ ঘণ্টায় এক দিনে এ যাবৎকালের সবচেয়ে বেশি ২৫৮ জনের মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছে। এমনকি এ সময় এই প্রথম দৈনিক মৃত্যু আড়াই হাজারের উপরে পৌঁছাল।

মৃত্যুর পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে গেছে যে, গত ২৭ দিনে মৃত্যুর সংখ্যা গত ১৬ মাসের যে-কোনো মাসকে ছাড়িয়ে গেছে। এ মাসের এখনো তিন দিন বাকি। অথচ এরই মধ্যে এ পর্যন্ত দেশে মোট মৃত্যুর ২৭ শতাংশই এ মাসে হয়েছে। এই হার মোট মৃত্যুর চারভাগের এক ভাগ।

এমনকি অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন রোগীদের জটিলতা অনেকগুণ বেড়েছে। মৃত্যুর ধরনও বদলেছে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আগে সাধারণত আক্রান্তের দুই-তিন সপ্তাহের মধ্যে রোগীদের মারা যেতে দেখা গেছে। এখন আক্রান্তের দুই-তিন দিনের মধ্যেও রোগীরা মারা যাচ্ছেন। পাশাপাশি এতদিন বয়স্কদের মৃত্যুর সংখ্যা বেশি থাকলেও এখন সে ব্যবধান কমে আসছে। তরুণদের মৃত্যুর ঘটনাও ঘটছে।

এমনকি সামনের দিনগুলোতে মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা করেছেন আইইডিসিআরের উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন। তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেন, কোরবানির ঈদে শিথিলতার কারণে এই সপ্তাহের পর থেকে শনাক্তের সংখ্যা ও তার পরের সপ্তাহ থেকে মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা আছে। চলমান বিধিনিষেধের কারণে তারপর কমতে থাকবে।

এ ব্যাপারে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. এ এস এম আলমগীর দেশ রূপান্তরকে বলেন, এখন মৃত্যুর ধরন বদলেছে। আগে আমরা বলতাম আক্রান্তের দুই-তিন সপ্তাহ পর মৃত্যুর প্রভাব বোঝা যায়। কিন্তু এখন যেসব রোগী দুই-তিন দিন আগে হাসপাতালে আসছে, তারাও মারা যাচ্ছে। এর প্রধান কারণ দেরিতে হাসপাতালে আসা। এখনো অনেকে মনে করে যে, করোনা হয়নি, প্রতিবছরের মতো এখনকার সর্দি কাশিও সাধারণ। মানুষের এই ধারণা খুবই ক্ষতিকর।

মৃত্যু বাড়ার কারণ হিসেবে এই বিশেষজ্ঞ কর্মকর্তা আরও বলেন, গ্রামাঞ্চলের মানুষ সঠিক সময়ে চিকিৎসা নিতে আসতে পারছেন না বা আসেন না। শ্বাসকষ্ট শুরু না হলে টেস্ট করান না, হাসপাতালেও আসেন না। যখন আসেন, তখন অবস্থা খুব জটিল হয়ে যায়, কিছু করার থাকে না।

সাড়ে ১৩ মাসের মৃত্যু শেষ দেড় মাসে : করোনায় দেশে মৃত্যুর সংখ্যা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, গতকাল পর্যন্ত দেশে করোনায় মোট মারা গেছেন ১৯ হাজার ৭৭৯ জন। এর মধ্যে ৫ হাজার ২৭৬ জনই মারা গেছেন গত ২৭ দিনে ও বাকি ১৬ মাসে মারা গেছেন ১৪ হাজার ৫০৩ জন। সে হিসেবে গত ২৭ দিনে যেখানে দৈনিক মৃত্যু ছিল ১৯৫ জন করে; সেখানে গত ১৬ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ মৃত্যুর মাস এ বছরের এপ্রিলে দৈনিক মৃত্যু ছিল ৮০ জন। অর্থাৎ গত ২৭ দিনে দৈনিক মৃত্যু গত এপ্রিলের দৈনিক মৃত্যুর চেয়ে আড়াই গুণ বেড়েছে।

মৃত্যুর তথ্য বিশ্লেষণ করে আরও দেখা গেছে, দেশে ৯ হাজার মৃত্যু ছাড়াতে যেখানে সময় লেগেছে সাড়ে ১৩ মাস; সেখানে বাকি ৯ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে মাত্র দেড় মাসেরও কম সময়ে অর্থাৎ শেষ ১ মাস ১১ দিনে। সে হিসাবে দেশে মোট মৃত্যুর ৪ ভাগের এক-ভাগই হয়েছে গত ২৭ দিনে।

কুষ্টিয়ায় মোট মৃত্যুর ৫৭ শতাংশই শেষ ২৭ দিনে : দেশের ১৫ জেলার মোট মৃত্যুর সংখ্যা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, সবচেয়ে কম সময়ে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে কুষ্টিয়া জেলায়। এখানে মোট মারা গেছেন ৫৯৬ জন। এর মধ্যে গত ২৭ দিনেই মারা গেছেন ৩৪১ জন, যা মোট মৃত্যুর ৫৭ শতাংশ। এরপর কম সময়ে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যশোরে। এখানে মোট মৃত্যু ৩৯৯ জনের। শেষ ২৭ দিনে মারা গেছেন ১৯৯ জন; যা মোট মৃত্যুর ৫০ শতাংশ। এরপর খুলনায় মোট ৫১৪ জনের মধ্যে গত ২৭ দিনে মারা গেছেন ২৩৯ জন, যা মোট মৃত্যুর ৪৬ শতাংশ এবং টাঙ্গাইলে মোট ৩৫৩ জনের মধ্যে গত ২৭ দিনে মারা গেছেন ১৫৪ জন, যা মোট মৃত্যুর ৪৪ শতাংশ। এভাবে শেষ ২৭ দিনে ফরিদপুরে ৩৪ শতাংশ, রাজশাহীতে ৩১ শতাংশ, কুমিল্লায় ২৮ শতাংশ,  বগুড়ায় ২৭ শতাংশ, দিনাজপুরে ২৬ শতাংশ, নোয়াখালীতে ২৫ শতাংশ, গাজীপুরে ২৪ শতাংশ,  সিলেটে ২৩ শতাংশ, চট্টগ্রামে ২১ শতাংশ, নারায়ণগঞ্জে ১৬ শতাংশ ও ঢাকায় মোট মৃত্যুর ১৩ শতাংশই মারা গেছেন শেষ ২৭ দিনে।

বয়স্কদের মৃত্যুর ব্যবধান কমে আসছে : এর আগে ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের মৃত্যুই ছিল বেশি। এখনো তা বেশি হলেও সেই ব্যবধান কমে আসছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর যে রেকর্ড হয়েছে, তার মধ্যে ৭৮ জনের বয়স ৬১-৭০ বছরের মধ্যে, ৫৪ জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে, ৫০ জনের বয়স ৭১-৮০ বছরের মধ্যে ও ৩১ জনের বয়স ৪১-৫০ বছরের মধ্যে। এখন পর্যন্ত দেশে মোট মৃত ১৯ হাজার ৭৭৯ জনের মধ্যে এখনো সর্বাধিক ৬ হাজার ১৫২ জনের বয়স ৬১ থেকে ৭০ বছর। আর ৫১-৬০ বছর বয়সী মৃতের সংখ্যা ৪ হাজার ৭২৭। ৪১-৫০ বছর বয়সীদের মধ্যে মারা গেছেন ২ হাজার ৩৭৫ জন।

কম বয়সীরাও আক্রান্ত হচ্ছে : স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ কমিটির সদস্য ডা. আবু জামিল ফয়সাল বলেন, এবারের করোনাভাইরাস সংক্রমণের সবচেয়ে বড় পরিবর্তন হলো এবার সংক্রমণ বৃদ্ধি শুরুই হয়েছে ঢাকার বাইরের জেলাগুলো থেকে। যেসব জেলা সীমান্তসংলগ্ন। গত বছর এই রোগে শুধু বয়স্করা আক্রান্ত হলেও এ বছর ডেল্টায় কম বয়সীরাও আক্রান্ত হচ্ছেন। গতবারের করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে চিকিৎসক-নার্সরা চিকিৎসা পদ্ধতি সম্পর্কে অনেক কিছু শিখতে পেরেছে। ঢাকার এখন সংক্রমণ মোকাবিলায় প্রস্তুত হলেও বাইরের হাসপাতালগুলো প্রস্তুত না।

ঢাকার বাইরে জেলা শহরে মৃত্যু কয়েকগুণ বেড়েছে : বিভাগভিত্তিক মৃত্যুর তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, এবার ঢাকার বাইরে অন্য জেলাশহরগুলোয় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে কয়েক গুণ। গত বছর জুনে ঢাকা বিভাগে ৫৫২, চট্টগ্রামে ৩৩৫, রাজশাহীতে ৭৬, খুলনায় ৫৯, বরিশালে ৫২, রংপুরে ৩২, সিলেটে ৫৭ এবং ময়মনসিংহে ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এ বছরে জুন মাসে ঢাকা বিভাগে মৃত্যু কমলেও (৪০৭ জন) চট্টগ্রামে বেড়ে হয়েছে ৩৪১ জন, রাজশাহীতে ৩৪৯ জন, খুলনায় ৪৭৭ জন, বরিশালে ৪১ জন, সিলেটে ৬৯, রংপুরে ১৪১ জন, ময়মনসিংহে ৫৯ জন।

এমনকি গত বছরের জুলাই মাসের সঙ্গে এ বছরের জুলাই মাসের মৃত্যুর সংখ্যাগত পার্থক্য অনেক। গত বছরের জুলাই মাসে ঢাকা বিভাগে ৪৯৮ জন, চট্টগ্রামে ২৮৩, রাজশাহীতে ৯৯, খুলনায় ১৫৫, বরিশালে ৬৩, রংপুরে ৬৯, সিলেটে ৭৭ এবং ময়মনসিংহে ২০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এ বছর জুলাই মাসে ঢাকা বিভাগে গত বছরের দ্বিগুণের বেশি ১০১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে করোনাভাইরাসে। এছাড়া চট্টগ্রামে ৫০৬, রাজশাহীতে ৩৫৬, খুলনায় ৯৩৭, বরিশালে ১১১, সিলেটে ১০৭, রংপুরে ২৩৪ এবং ময়মনসিংহে ১২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মোট মৃত্যুর অর্ধেকই ঢাকায় : দেশে মোট মৃত্যুর অর্ধেক মানুষই ঢাকা বিভাগে মারা গেছেন। এই বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। মোট মারা গেছেন ৯ হাজার ২০৩ জন, যা মোট মৃত্যুর ৪৭ শতাংশ। এরপর সবচেয়ে বেশি মারা গেছেন চট্টগ্রাম বিভাগে মোট ৩ হাজার ৬৩৪ জন (গত ২৪ ঘণ্টায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৬১ জন), যা মোট মৃত্যুর ১৮ শতাংশ। এরপর তৃতীয় সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষ মারা গেছেন খুলনা বিভাগে। এখানে ২৪ ঘণ্টায় ৫০ জন ও মোট ২ হাজার ৬১১ জন, যা মোট মৃত্যুর ১৩ শতাংশ।

নমুনা পরীক্ষায় সর্বোচ্চ রেকর্ড : স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত এক দিনে সারা দেশে মোট ৫২ হাজার ৪৭৮টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে, যা এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ পরীক্ষা। এর আগের দিন সর্বোচ্চ ৫০ হাজার ৯৫২ জনের পরীক্ষার রেকর্ড হয়েছিল এবং সেদিনই প্রথম দেশে দৈনিক দেড় লাখের ওপর পরীক্ষা দাঁড়ায়। এ নিয়ে দেশে মোট পরীক্ষা হয়েছে ৭৫ লাখ ৫৮ হাজার ৭১১টি নমুনা। নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় দৈনিক শনাক্তের হার ২৮ দশমিক ৪৪ শতাংশ, যা আগের দিন ২৯ দশমিক ৮২ ছিল।

২৪ ঘণ্টায় বেশি রোগী ঢাকায় : গত এক দিনে ঢাকা জেলায় দেশের সর্বোচ্চ ৪ হাজার ১৭২ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া ফরিদপুরে ১৫৬, গাজীপুরে ২৭০, গোপালগঞ্জে ১৪৯, কিশোরগঞ্জে ১৭০, মাদারীপুরে ১৬৮, মানিকগঞ্জে ১৭০, মুন্সীগঞ্জে ২০১, নারায়ণগঞ্জে ২১৪ জন এবং টাঙ্গাইল জেলায় ২৫৬ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

চট্টগ্রাম জেলায় ১৩১০, কক্সবাজারে ৩১৫, ফেনীতে ১২০, নোয়াখালীতে ২২১, লক্ষ্মীপুরে ১৬৯, চাঁদপুরে ১৮০, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৮৪ এবং কুমিল্লায় ৮৩৫ জন আক্রান্ত হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়।

রাজশাহী জেলায় ১৯৩, পাবনায় ১৪৫, সিরাজগঞ্জে ১৭৪ এবং বগুড়ায় ১৩৫ জন নতুন রোগী পাওয়া গেছে গত এক দিনে। বাগেরহাটে ১০১, যশোরে ২২৬, খুলনায় ৪৬৯ এবং কুষ্টিয়ায় ২৫৩ জন করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন গত ২৪ ঘণ্টায়।

অন্য জেলাগুলোর মধ্যে ময়মনসিংহে ৩৩২, বরিশালে ২৯৩, পটুয়াখালীতে ১১৭, ভোলায় ১২০, পিরোজপুরে ১৩৫, সিলেটে ৪১৬, সুনামগঞ্জে ১২০, মৌলভীবাজারে ১০৬, রংপুরে ১৬১, কুড়িগ্রামে ১০১, ঠাকুরগাঁওয়ে ১১৩ এবং দিনাজপুরে ২০৯ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

এই বিভাগের আরও খবর
Copyright © The Invent
error: Content is protected !!